Logo

অবশেষে এসপি’র হস্তক্ষেপে থানায় মামলা!

মো. মাহফুজুর রহমান, কালীগঞ্জ (গাজীপুর)
প্রকাশ: সোমবার, ২৫ অক্টোবর, ২০২১
অবশেষে এসপি’র হস্তক্ষেপে থানায় মামলা

বিয়ের নাটক সাজিয়ে বছরের পর বছর শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করার ঘটনায় কালীগঞ্জ থানায় ধর্ষণের অভিযোগ করেছিল নির্যাতিতা চল্লিশোর্ধ শাহিদা (ছদ্ম নাম)। কিন্তু অভিযুক্ত সেই সবজি ব্যবসায়ী মো: নয়ন মিয়া(৪৫) ও নাটকের মঞ্চ তৈরি করা মো. আবু তাহের ওরফে ফারুখ হোসেন কাজীর বিরুদ্ধে করা অভিযোগ আমলে না নিয়ে আদালতে মামলা করতে বলেন থানার ওসি মো: আনিসুর রহমান।

গত বুধবার (০৬ অক্টোবর) অভিযোগ করার পর গত রোববার (২৪ অক্টোবর) পর্যন্ত এ ঘটনায় থানায় কোন মামলা হয়নি। এভাবে নির্যাতিতা ওই নারীকে ওসি টানা ১৯ দিন নানা টালবাহানায় সময়ক্ষেপন করতে থাকে। কিন্তু নির্যাতিতা ওই নারী থানায় সেবা না পেয়ে গাজীপুর পুলিশ সুপার (এসপি) এস.এম শফিউল্লাহ’র (বিপিএম) স্মরনাপন্ন হন। পরে এসপি’র হস্তক্ষেপে সোমবার (২৫ অক্টোবর) সকালে কালীগঞ্জ থানায় ৯(১)/৩০ ২০০০ সালের নারী ও শিশু দমন আইন সংশোধনী ২০০৩ ধারায় একটি মামলা দায়ের হয়।

সোমবার (২৫ অক্টোবর) বিকেলে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও কালীগঞ্জ থানার পরিদর্শক (অপারেশন) কায়সার আহমদ।

অভিযুক্ত নয়ন নরসিংদীর পলাশ উপজেলার ডাঙ্গা ইউনিয়নের মাথিচর গ্রামের আমান উল্লাহর ছেলে। বর্তমানে তিনি কালীগঞ্জ পৌরসভার মুনশুরপুর এলাকায় স্ত্রী, কন্যা ও দুই পুত্র সন্তান নিয়ে ভাড়া বাসায় থেকে কালীগঞ্জ বাজারে সবজি ও ফলের ব্যবসা পরিচালনা করেন। অন্যদিকে নিকাহ রেজিষ্ট্রার আবু তাহের উপজেলার তুমলিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণসোম গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ছেলে।

কায়সার আহমদ বলেন, আমাকে ওই অভিযোগের তদন্তভার দেওয়ার পর তদন্ত করে এ বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি। পরে সেই অভিযোগ আমলে নিয়ে থানায় মামলা হয়েছে। তবে মামলার আসামীদের গ্রেপ্তারের বিভিন্নস্থানে অভিযান চলছে। খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে আসামীদের আটক করা সম্ভব হবে বলেও জানান পুলিশের ওই কর্মকর্তা।

ভূক্তভোগী শাহিদা জানান, স্থানীয় কাউন্সিলরদের কাছে বিচার না পেয়ে গত ০৬ অক্টোবর দুপুরে একটি অভিযোগ করেন। ওইদিন অভিযোগটি ডিউটি অফিসার এসআই এইচএম ইমন গ্রহন করেন। পরে একাধীকবার থানায় গিয়ে এবং ফোনে কথা বলার পরও ১৯ দিনে মামলাটি রুজু হয়নি। বরং থানার ওসি তাকে আদালতে মামলা করতে বলে। পরে রোববার (২৪ অক্টোবর) গাজীপুর পুলিশ সুপার (এসপি) শফিউল্লাহ বিপিএম বার স্যারের সাথে দেখা করেন। এসপি স্যার কালীগঞ্জ থানার ওসিকে নির্দেশ দিলে সোমবার (২৫ অক্টোবর) থানায় মামলা হয়। তবে তিনি এজাহারনামীয় অভিযুক্তদের দ্রুত গ্রেপ্তারের অনুরোধ জানান।

কালীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: আনিসুর রহমান বলেন, অভিযোগ দেওয়ার সময় আমি ছুটিতে ছিলাম এ জন্য মামলা দায়েরে কাল ক্ষেপন হয়েছে। এখন ঊর্ধ্বতনদের অনুমতি পেয়ে মামলা নিয়েছি।


More News Of This Category
Theme Created By Tarunkantho.Com