Logo
শিরোনাম :
বান্দরবানে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করেন মাননীয় মন্ত্রী ই-পাসপোর্ট পেতে বিড়ম্বনার শিকার সংযুক্ত আরব আমিরাত প্রবাসীরা সিংগাইরে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে নিয়োগ বানিজ্য লেনদেনে অভিযোগ বাঘায় তিন দিনেও নিখোঁজ শিশুর সন্ধান মেলেনি বদলগাছীতে মোটরসাইকেল-ভুটভুটির সংঘর্ষে একজনের মর্মান্তিক মৃত্যু বাঘার সিফাত জাতীয় পর্যায়ে তৃতীয় অনাহারী স্ত্রী সন্তানরা দিন মজুর রেজাউল করিমের হত্যার বিচার চায়। শ্রমিকের ন্যায্য হিস্যা বুঝিয়ে দিন; ইউএনও দীপন দেবনাথ ঠাকুরগাঁওয়ে ইসলামী আন্দোলনের বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচন করবেন মোয়াজ্জেম হোসেন খান মজলিশ




সিংগাইরে ভাতা বঞ্চিত শারীরিক প্রতিবন্ধী  রাসেল, কাঠের লাঠিই ভরসা 

আজকের তরুণকণ্ঠ :
প্রকাশকাল : শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০২২
ভাতা বঞ্চিত শারীরিক প্রতিবন্ধী

নিজস্ব প্রতিবেদক:

শারীরিক প্রতিবন্ধী  রাসেলের কপালে জোটেনি একটি  প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড। আর চলাফেরার জন্য নাই একটি হুইল চেয়ার।  এখন কাঠের লাঠিই তার একমাত্র  ভরসা। অভাব  অনটনে  জর্জড়িত একটি  পরিবারে জন্ম গ্রহন করেন রাসেল। সিংগাইর উপজেলার জামশা  ইউনিয়নের কালিগঙ্গা নদীর তীরবর্তী   উত্তর  জামশা   গ্রামের  দিনমজুর  মো. ওমর আলীর  ছেলে।

জানা যায়, দিনমজুর   মো. ওমর  আলীর  ঘর  আলো করে ১২ বছর আগে  ফুট ফুটে  একটি পুত্র  সন্তান  জন্ম হয়। জন্মের পর  থেকেই রাসেলের দুটি পা অবস। দুপায়ে ভর দিয়ে  চলাফেরা করতে  পারে না। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে  রাসেলের পরিবার বুঝতে পারেন  যে  ছেলের দুটি পা পঙ্গু ।  রাসেল-কে ভাল করার জন্য শুরুতে  ফকির দিয়ে বহু ঝাড়ফুক করেন। কিন্তু কোন   কিছুতেই তাকে ভাল করা সম্ভব হয়নি। স্থানীয় চিকিৎসকের মাধ্যমে  কোন রকম চিকিৎসা  দিলেও   অর্থের অভাবে উন্নত চিকিৎসা করতে পারেনি  রাসেলের  পরিবার।  বৃদ্ধ মা অসুস্থ  ছেলে ও মেয়ে নিয়ে  সংসার চালতে এমনিতেই  হিমশিম খাচ্ছেন ওমর আলী। ওমর আলী ছেলে সন্তান  নিয়ে যে ঘরে  বসবাস করেন সেটিও পাট  খড়ির বেড়ার  ছাপড়া ঘর। সংসারে অভাব  অনটন যেন তাদরের  নিত্যদিনের সঙ্গি। কোন রকম স্ত্রী  সন্তান  নিয়ে  একবেলা খেয়ে  আরেক বেলা না খেয়ে দিনাতিপাত  করছে ওমর আলী।

ধার  দেনা  করে   চিকিৎসা করিয়ে  তাকে  ভাল করতে পারেন নাই। বর্তমানে ওমর আলী একটি ইট ভাটায় শ্রমিকের কাজ করেন।  তিনি যে পারিশ্রমিক পান তা দিয়ে  সংসার চালাতে  হিমশিম খান।  তাও আবার ইটভাটা   ছয় মাস কাজ থাকে  আর ছয় মাস কাজ থাকেনা। তখন  পরিবার ও স্ত্রী সন্তান নিয়ে চলাই কষ্ট,  আবার ছেলে রাসেলও দু’চার টি স্বাভাবিক  শিশুর মত নয়। তার দুটো পা  চিকুন, পায়ে কোন বোধশক্তি নেই।  কাঠের লাঠির উপর ভরকরে চলা ফেরা করে।  রাসেলের  লেখা পড়ার প্রবল ইচ্ছা শক্তি  থাকার পরও    তিনি পড়া শুনা   করতে পারেন নাই। এই গ্রামে তিন কিলোমিটারের মধ্য কোন স্কুল ননা থাকায় তার স্কলে যাওয়া হয়নি। যে কারনে সে পড়াশুনা  করতে পারিনি। প্রতিবন্ধী রাসেলের  মা নাসিমা আক্তার বলেন,  আমার ছেল একজন প্রকৃত শারীরিক  প্রতিবন্ধী  হওয়া সত্বেও  তার কপালে জোটেনি  কোন  ভাতা ও একটি  হুইল চেয়ার।

ইউএনও দীপন দেবনাথ বলেন, শারীরিক  প্রতিবন্ধী  রাসেল  যাতে ভাতা ও হুইল চেয়ার পান সে ব্যাপারে প্রয়োজনীয়  ব্যবস্থা নেওয়া হবে ।


আরো পড়ুন

চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করে আমাদের সাথে থাকুন:




ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করে সাথে থাকুন:
Theme Created By Tarunkantho.Com