রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১১:২৯ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি:
অনলাইন নিউজ পোর্টাল “আজকের তরুণকণ্ঠে” জেলা, উপজেলা, বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ পর্যায়ে সাংবাদিক/প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহীরা  ইমেইলে (newstarunkantho@gmail.com)জীবন বৃত্তান্তসহ পাসপোর্ট সাইজের ছবি ও জাতীয় পরিচয় পত্র সংযুক্ত করে পাঠাতে পারেন।

অবৈধ ড্রেজার জব্দ করে পুলিশে দিলো গ্রামবাসী

তরুণকণ্ঠ ডেস্ক
প্রকাশ : বুধবার, ১৩ মার্চ, ২০২৪, ৮:৫৬ অপরাহ্ন
ড্রেজার জব্দ করে গ্রামবাসী

নরসিংদী প্রতিনিধি:

নরসিংদীর রায়পুরার মেঘনা নদীর তীর ঘেঁষে অবৈধ বালু উত্তোলনের সময় চুম্বক ড্রেজার জব্দ করে পুলিশে সোপর্দ করে গ্রামবাসী।

বুধবার বিকেলে আটককৃত ড্রেজারটি পুলিশে সোপর্দ করে। এর আগে সকালে মেঘনা নদীর তীরবর্তী উপজেলার চাঁনপুর ইউনিয়নের কালিকাপুর গ্রামে ড্রেজারটি জব্দ করে স্থানীয়রা। স্থানীয় প্রশাসনকে অবগত করলে ড্রেজারটি জব্দ দেখানো হয়।

ড্রেজার আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেন চাঁনপুর ইউপি চেয়ারম্যান মোমেন সরকার ও থানার উপপরিদর্শক আরিফ রাব্বানী।

স্থানীয়রা জানান, জেলা প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে প্রতিনিয়ত কতিপয় প্রভাবশালী ড্রেজার মালিকরা রায়পুরা সীমানায় অবৈধ বালু উত্তোলন করে আসছে। বুধবার সকালে চুম্বক ড্রেজার দিয়ে মেঘনা নদীর পাড় গেসে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করা হচ্ছিল। পরে স্থানীয় বাসিন্দা কয়েকটি নৌকা যুগে ড্রেজারটি আটক করে। পুলিশ ও প্রশাসনকে বিষয়টি অবগত করলে ড্রেজারটি জব্দ দেখানো হয়। এলাকাবাসীর বাঁধা সত্ত্বেও প্রায়ই অবৈধ ভাবে চাঁনপুর সীমানা থেকে ড্রেজার মালিকরা ক্ষমতা প্রদর্শন করে হামলা -মামলার ভয় দেখিয়ে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করে। এতে করে এই অঞ্চলের মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাপন ব্যাহত হচ্ছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর সীমান্তে বালুমহাল ইজারা নিয়ে রায়পুরা উপজেলা সীমান্তে ঢুকে ফসলি জমি থেকে বালু উত্তোলন করছেন একটি প্রভাবশালী চক্র। এতে চাঁনপুরের পাঁচটি গ্রামে নদী ভাঙনে ফসলি জমি বিলীন হয়ে যাচ্ছে। ভিটামাটি হারা হওয়ার শঙ্কায় রয়েছেন হাজারো পরিবার। নদীর তলদেশ থেকে বালু উত্তোলন করতে না পেরে রাতের আধারে মেঘনার পাড়ে ফসলি জমি থেকে বালু উত্তোন করা হচ্ছে। এতে ফসলি জমি বিলীন হয়ে গেছে। বসত ভিটাও বিলীন হওয়ার পথে। প্রতিনিয়ত এলাকাবাসী ছোট-ছোট নৌকা নিয়ে ড্রেজারগুলোকে প্রায়ই তাড়া করি। তারপরও থেমে নেই অবৈধ বালু উত্তোলন। বালু উত্তোলন বন্ধ করতে হবে।

চাঁনপুর ইউপি চেয়ারম্যান মোমেন সরকার জানান, স্থানীয় একটি প্রভাবশালী চক্র অবৈধ বালু উত্তোলনের সঙ্গে জড়িত। গত চার মাস ধরে এভাবে বালু উত্তোলন করে আসছিল তারা। এতে চাঁনপুর ইউনিয়নের ফসলি জমি বিলীন হওয়া পথে। গ্রামপুলিশের মাধ্যমে খবর পাই বুধবার সকালে গ্রামবাসী একটি ড্রেজার আটক করে পুলিশে দেয়।

রায়পুরা থানার উপপরিদর্শক আরিফ রাব্বানী বলেন, খবর পেয়ে বিকেলে ড্রেজারটি আটক করে উপজেলার প্রান্থশালায় নিয়ে আসি। পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।
উপজেলা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রোজলিন শহিদ চৌধুরী বলেন, বিষয়টি অবগত নই খুঁজ খবর নিচ্ছি। এর আগেও কয়েকবার ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা আদায় করলেও কোনো কাজে আসছেনা। এ ব্যাপারে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওক পুলিশ এটাই ভালো হয়।


এ সম্পর্কিত

Theme Created By ThemesDealer.Com