রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ১০:৪৭ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি:
অনলাইন নিউজ পোর্টাল “আজকের তরুণকণ্ঠে” জেলা, উপজেলা, বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ পর্যায়ে সাংবাদিক/প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহীরা  ইমেইলে (newstarunkantho@gmail.com) জীবন বৃত্তান্তসহ পাসপোর্ট সাইজের ছবি ও জাতীয় পরিচয় পত্র সংযুক্ত করে পাঠাতে পারেন।

ইকবাল হত্যা মামলায় ৪ জনের মৃত্যুদণ্ড, ৭ জনের যাবজ্জীবন

তরুণকণ্ঠ ডেস্ক
প্রকাশ : বুধবার, ৩ জুলাই, ২০২৪, ৮:২৩ অপরাহ্ন

সরাইল উপজেলা প্রতিনিধি:

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সরাইল প্রবিন আওয়ামী লীগ নেতা একে এম ইকবাল আজাদ হত্যা মামলায় ৪ জনের মৃত্যুদণ্ড ও ৭ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এ মামলায় খালাস পেয়েছেন ৬ জন।

আলোচিত হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- সরাইল উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা রফিক উদ্দিন ঠাকুর, উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি মাহফুজ আলী, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার ইসমত আলী এবং মোকারম আলী সোহেল।

সরাইল উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা ইকবাল আজাদ হত্যা মামলায় ৪ জনের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত।
বুধবার (৩ জুলাই) চট্টগ্রামের বিভাগীয় দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল আদালত এ রায় ঘোষণা করেন। রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি অশোক কুমার দাস এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।এর আগে সোমবার (১ জুলাই) দুপুরে মামলার আসামিরা চট্টগ্রাম বিভাগীয় দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক হালিম উল্লাহ চৌধুরীর আদালতে হাজির হয়ে জামিন বহাল রাখার আবেদন করেন। বিচারক জামিন নামঞ্জুর করে তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। বুধবার (৪ জুলাই) রায় ঘোষণার দিন ধার্য করেন আদালত।

ইকবাল আজাদ সরাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা ছিলেন। ইকবাল আজাদের স্ত্রী উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম ওরফে শিউলি আজাদ বর্তমানে উপজেলা আওয়ামী লীগের আংশিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক। তিনি একাদশ জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত ৩১২ (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) মহিলা আসনের সংসদ সদস্য ছিলেন।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১২ সালের ২১ অক্টোবর সন্ধ্যায় থানার কাছে ইকবাল আজাদকে হত্যা করা হয়পরদিন তার ভাই একেএম জাহাঙ্গীর আজাদ বাদী হয়ে ২২ জনকে আসামি করে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

পরে এ মামলায় উপজেলা আওয়ামী লীগের তৎকালীন সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হালিম (মৃত), সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সাদেক মিয়া (মৃত), তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক ও তৎকালীন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রফিক উদ্দিন ঠাকুর, যুগ্ম সম্পাদক মো. তখন সদর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল জব্বার, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ।কমান্ডার ইসমত আলী, ডেপুটি কমান্ডার আনোয়ার হোসেন, সদর ইউপি সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা ইদ্রিস আলী, উপজেলা যুবলীগের তৎকালীন সভাপতি মাহফুজ আলী, সাবেক সহ-সভাপতি আল ইমরান, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হাফিজুল আসাদ ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান আ২৯ জন নেতাকর্মীকে আসামি করে আদালতে চার্জশিট পুলিশ অভিযুক্তদের মধ্যে দুইজন মারা গেছে, ছয়জন (মধ্যপ্রাচ্যে)।বিভিন্ন দেশে পলাতক রয়েছেন।


এ সম্পর্কিত

Theme Created By ThemesDealer.Com