Logo
শিরোনাম :
বান্দরবানে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করেন মাননীয় মন্ত্রী ই-পাসপোর্ট পেতে বিড়ম্বনার শিকার সংযুক্ত আরব আমিরাত প্রবাসীরা সিংগাইরে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে নিয়োগ বানিজ্য লেনদেনে অভিযোগ বাঘায় তিন দিনেও নিখোঁজ শিশুর সন্ধান মেলেনি বদলগাছীতে মোটরসাইকেল-ভুটভুটির সংঘর্ষে একজনের মর্মান্তিক মৃত্যু বাঘার সিফাত জাতীয় পর্যায়ে তৃতীয় অনাহারী স্ত্রী সন্তানরা দিন মজুর রেজাউল করিমের হত্যার বিচার চায়। শ্রমিকের ন্যায্য হিস্যা বুঝিয়ে দিন; ইউএনও দীপন দেবনাথ ঠাকুরগাঁওয়ে ইসলামী আন্দোলনের বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচন করবেন মোয়াজ্জেম হোসেন খান মজলিশ




একযুগ ধরে পাখির ভালোবাসায় নিজেকে জড়িয়ে রেখেছেন আব্দুর রশিদ

আজকের তরুণকণ্ঠ :
প্রকাশকাল : মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২২

সেলিম রেজা, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি:
প্রায় একযুগ ধরে শত-শত শালিক পাখির ভালোবাসায় নিজেকে নিভীরভাবে জড়িয়ে রেখেছেন সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার হরিণা পিপুলবাড়িয়া বাজারের আব্দুর রশিদ (৫৮) পেশায় তিনি একজন দোকানদার কিন্তু সবাই চেনেন তাকে ‘পাখিপ্রেমী’ হিসেবে।
একযুগ ধরে মায়া-মমতা আর ভালোবাসায় জড়িয়ে থাকা শত-শত শালিক পাখি ক্ষুধা অনুভব করলেই আব্দুর রশিদের দোকানের সামনে এসে জড়ো হয়ে শুরু করে কিচিরমিচির। কিচিরমিচির এর মাধ্যমে জানান দেয় তাদের উপস্থিতি।
এসময় তাদের কিচিরমিচির থামাতে মাটিতে খাবার ছিটিয়ে দেন আব্দুর রশিদ। প্রতিদিন দু’বেলা খাবারের সময় শালিক পাখিদের কিচিরমিচির শব্দ এসে যেন আনন্দের ঢেউ তোলে পাখিপ্রেমী আব্দুর রশিদের অন্তরে। এভাবেই আজ প্রায় একযুগ ধরে এই শালিক পাখিগুলোর সাথে তার গড়ে উঠেছে গভীর ভালোবাসা। ইসলাম যে শিক্ষাটি দিয়েছে সেই শিক্ষাটি হৃদয়ে ধারণ ও লালন করে আব্দুর রশিদ তার মহত্ত্ব দিয়ে এ কাজটি করায় তিনি এলাকায় প্রশংসিত হয়েছেন।
প্রতিদিন ভোরের সুর্য ওঠার সাথে সাথেই ঝাঁকে ঝাঁকে শালিক পাখির কিচিরমিচির শব্দে মুখড়িত হয়ে ওঠে আব্দুর রশিদের দোকানের আশপাশ। পাখিদের এমন দৃশ্য দেখে মুগ্ধ হন পথচারীসহ আশপাশের দোকানদাররা। শালিক পাখির প্রতি এমন ভালোবাসা প্রদর্শন করায় আব্দুর রশিদ এলাকায় ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে। পাখিপ্রেমী আব্দুর রশিদ এর বাড়ী সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার বাগবাটি ইউনিউনের কাঁনগাতী গ্রাম।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,সকালে আব্দুর রশিদ দোকান খোলার আগে সামনের সড়কের পাশে চানাচুর ছিটিয়ে দেন,। এতে ঝাঁকে ঝাঁকে শালিক পাখি সড়কে এসে খাবার খায় এবং খাবার গ্রহনকালে আব্দুর রশিদকে ঘিরে ধরে পাখিরা তাদের ভালোবাসা প্রদর্শন করে। এভাবে তারা সকালের খাবার খেয়ে চলে যায় আবার ফিরে আসে দুপুরের খাবার খেতে।
পাখিপ্রেমী আব্দুর রশিদ এশিয়ান বার্তা টোয়েন্টিফোর ডটকম’কে বলেন,এক যুগেরও বেশি সময় ধরে পাখিগুলোকে দুবেলা খাওয়াতে পেরে আমি আনন্দিত। এজন্য আমার প্রতিদিন ১০০-১২০ টাকা খরচ হয়। তবুও আমি পাখিদের খাওয়ানো বাদ দেইনি। এটা আমৃত্যু অব্যাহত থাকবে। তবে পাখি থেকে শুরু করে প্রতিটি প্রাণীর প্রতি আব্দুর রশিদের মতো প্রত্যেক মানুষেরই ভালোবাসা থাকা দরকার-এমনটাই প্রত্যাশা সবার।


আরো পড়ুন

চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করে আমাদের সাথে থাকুন:




ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করে সাথে থাকুন:
Theme Created By Tarunkantho.Com